FiiO A1 Headphone Amp


ফাইও এ ওয়ান পোর্টেবল মাইক্রো অ্যাম্প রিভিউ
গান শুনতে কে না ভালবাসে। গুড কোয়ালিটি ইয়ারফোন হলে ত কথাই নেই। তবে আমরা যারা অডিওফাইল(এট লিস্ট মনে করি আর কি!!!!) তারা একটু ভাল কিছু আশা করি। অনেকেই দামি ইয়ারফোন কেনেন, কিন্তু তেমন ভাল সাউন্ড আউটপুট পান না। হয়ত আপনার মোবাইল ফোনটি দামি বাট সেই অনুযায়ী সাউন্ড পান না। আবার এমনও হতে পারে আপনার মোবাইলের সাউন্ড আউটপুট খারাপ। হয়ত আপনি এ সমস্যার সমাধান খুজছেন। তাদের জন্যে এই পোস্ট।
আমি খুব শর্টে সাউন্ড আউটপুট এর ব্যাপারটি বলার চেষ্টা করছি। ভাল সাউন্ড আউটপুট এর জন্যে কিছু জিনিষ আবশ্যক। গুড কোয়ালিটি অডিও ফাইল, ডিসেন্ট ডেক, ডিসেন্ট অ্যাম্প অ্যান্ড লাস্ট ওয়ান ইজ এ গুড পেয়ার অফ ইয়ারবাডস। আমরা দামি ইয়ারফোন কিনেও ভাল সাউন্ড আউটপুট পাই না অনেক সময়। সাউন্ড ফেটে যেতে পারে, অথবা ভলিউম কম পাই। এর কারন আপনার ডিভাইসের অডিও আউটপুট। আমরা যারা মিউজিক নিয়ে ঘাটাঘাটি করি, তারা সবাই ডেক এবং অ্যাম্প এর সাথে কমবেশি পরিচিত। আজকে আমরা তেমনই একটি অ্যাম্প এর সাথে পরিচিত হব যেটি ইম্প্রেসিভ অডিও আউটপুট এর পাশাপাশি পকেট ফ্রেন্ডলি।
ফাইও চাইনিজ একটি ব্র্যান্ড যেটি ২০০৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। তাদের মটো ছিল একটিই। কম দামে হাই কোয়ালিটি অডিও প্রোডাক্ট কাস্টমারদের কাছে পৌঁছে দেয়া। শুরুতে অনেক টপ অডিউফাইলরা নাক সিটকান। কিন্তু সময়ের সাথে সাথে ফাইও তাদের ধারনা ভুল প্রমানিত করে। তারা ই৫,ই৩, ই৪, ই১১ কিলিমাঞ্জারো অ্যাম্প দিয়ে অডিওফাইলদের মন জয় করে। ফাইও তাদের অ্যাম্প, ডেক, ডেপ বা পোর্টেবল ডিজিটাল অডিও প্লেয়ার, ইন ইয়ার মনিটর ইত্যাদির জন্যে বিখ্যাত। আজকে ফাইও অডিওফাইলদের কাছে একটি রেস্পেক্টেবল ব্র্যান্ড।
আনবক্সিং
বক্সটি খুব ছোট এবং সাদামাটা মনে হলেও এতে দরকারি সবকিছুই দেয়া আছে। আনবক্সিং করলে প্রথমেই আপনি অ্যাম্পটি পাবেন। এর ব্যাপারে পরে আসছি। বক্সে আরও পাবেন ম্যানুয়াল, ওয়ার‍্যান্টি কার্ড, ২টি প্লাস্টিক স্ট্র্যাপ এবং ২টি প্লাস্টিক এর বেল্ট ক্লিপ, ১টি শর্ট লেংথ ২.৭৫ ইঞ্চি ৩.৫ মিমি ইন্টারকানেক্ট অডিও ক্যাবল, একটি লং ৩০ ইঞ্ছি ৩.৫ ইন্টারকানেক্ট অডিও ক্যাবল, একটি মাইক্রো ইউ এস বি ক্যাবল ইত্যাদি।
প্রথমেই অ্যাম্পটি হাতে নিয়ে খুবই অবাক হবেন। কারন এটি সাইজে খুবই ছোট। নিচের পিকচার থেকে বুঝতে পারবেন। অন্যান্য অ্যাম্প সাইজে অলমোস্ট মোবাইলের সমান বড় হয়ে এবং রাবার স্ট্রেপ দিয়ে আপনার ডিভাইসের পিছনে লাগিয়ে রাখতে হয়। এর ফুল বডি মেটাল এর। এর নিচে আপনি মাইক্রো ইউ এস বি পোর্ট পাবেন ফর চারজিং। এর পাশে পাবেন অডিও ইন, যেটিতে আপনার ডিভাইস থেকে অডিউ আসবে। উপরে পাবেন পাওয়ার অন অফ বাটন, যেটি একই সাথে ব্যাস বুস্ট হিসেবেও কাজ করবে। এই ব্যাপারে পরে আলোচনা করছি। ভলিউম প্লাস মাইনাস বাটন এর পাশেই পাবেন অডিও আউট যাতে আপনি আপনার ইয়ারফোন প্লাগ ইন করবেন। ফুল বডি সিল্ভার অ্যান্ড ব্ল্যাক অ্যাকসেন্ট এর যা এটিকে এলিজেন্ট একটি লুক দিয়েছে।
মূল্য ২৫০০ টাকা
পারফর্মেন্স
এ ওয়ান একটি পোর্টেবল অ্যাম্প যেটি সোর্স অডিও আউটপুটকে অ্যামপ্লিফাই করে। দেখতে ছোট হলেও এটি বেশ পাওয়ারফুল। এতে ব্যাবহার করা হয়েছে টেক্সাস ইন্সট্রোমেন্টের টিপিএ ৬১৩০এ২। এই চিপটি ১৬-১০০ ওহমের ইয়ারফোন ড্রাইভ করতে পারে । এর ফ্রিকোয়েন্সি রেসপন্স ১০ হার্টস থেকে ৯০,০০০ হার্টস এবং এটি অনলি ০.০৫ পারসেন্ট হারমনিক ডিস্টরশন ক্রিয়েট করে যার কারনে আপনি হাই কোয়ালিটি অডিও আউটপুট পাবেন। এতে আরও আছে ১৬০ মিলিঅ্যাম্প এর ব্যাটারি যার মাধ্যমে ১২-১৪ ঘন্টা পর্যন্ত মিউজিক প্লেটাইম পাবেন। ফুল চার্জ হতে অনলি ৩০ মিনিট লাগে।
অ্যাম্পটি আমি ফাইও এক্স ১ ডেপ, শাউমি এম আই ৫ এস, ওয়াল্টন এক্স ফোর প্রো তে ব্যাবহার করেছি। অডিউ ফাইল হিসেবে আমি ২৪ বিট ৯৬ কিলোহার্টস এর ফ্ল্যাক ফরমেট ব্যাবহার করেছি।
ইয়ারফোন লাগিয়ে কানে দেয়া মাত্র আপনি হিউজ ডিফারেন্স টের পাবেন। প্রথমেই যেটি কানে বাজবে তা হল এর লাউডনেস। আপনি যতই ভলিউম বাড়ান, সাউন্ড ফাটবে না। এর সাথে সাথে মিউজিক এর টোটাল সাউন্ডস্টেজ কিছুটা ওয়াইড মনে হবে। এর কারন এটি শুধু লাউডনেস বাড়ায় না, সাথে সাথে সাউন্ডস্টেজও অ্যামপ্লিফাই করে। প্রতিটা ইন্সট্রোমেন্ট, ড্রামের শব্দ আরও ক্লিয়ারলি অনুভব করতে পারবেন। অ্যাম্পটিতে ৩টি ব্যাস মোড রয়েছে। পাওয়ার বাটন প্রেস করে অ্যাক্টিভেট করতে পারবেন। এলইডি ইন্ডিকেটরটি ব্লিঙ্ক এর মাধ্যমে জানিয়ে দিবে কোন ব্যাস মোডে রয়েছেন। ফ্লাট মোডে ব্যাস তেমন টের পাবেন না। কিন্তু যখন ব্যাস ১ মোডে যাবেন, মজা শুরু। সাথে ৪ ডিবি বুস্ট আপনি খুব ভাল ভাবেই টের পাবেন। যেহেতু এটি হার্ডওয়ার ব্যাস বুস্ট, তাই এতে ব্যাস এবং সাব ব্যাস বাড়লেও এটি মিড কিংবা হাই এর উপর তেমন কোন প্রভাব ফেলে না। হার্ডওয়ার মোড অলওয়েজ বেটার দেন সফটওয়ার মোড। অনেকটা অপটিক্যাল জুম ভার্সেস ডিজিটাল জুমের মত। যেখানে অপটিক্যাল জুম হার্ডওয়ার এবং ডিজিটাল জুম সফটওয়ার। তবে ব্যাস ২ এবং ৩ ব্যাস বুস্ট এত বেশি যে মিড এবং হাই এর উপর ভালই প্রভাব ফেলে। আমি পারসোনালি ব্যাস মোড ১ পছন্দ করি। ২ এবং ৩ আমার মতে ইউজলেস।
প্রোস
কম্প্যাক্ট সাইজ, ফুল মেটাল ইউনিবডি।
৩ স্টেজ ব্যাস বুস্ট উইথ হাই ফিডালিটি অডিও আউটপুট
ভেরি গুড ইন্সট্রোমেন্টাল সেপারেশন, ফলে সাউন্ডস্টেজ কিছুটা ওয়াইড লাগতে পারে
১২-১৪ ঘন্টা মিউজিক লিসেনিং টাইম
গুড অ্যামাউন্ট অফ অ্যাকসেসরিজ
কন্স
ব্যাস ২ এবং ৩ ইউজলেস
অটো পাউয়ার অফ সাপোর্ট করে না
টার্গেটেড অডিয়েন্স অ্যান্ড ভারডিক্ট
ছোট একটি ডিভাইস হওয়া স্বতেও ফাইও এ১ হাই ফিডালিটি সাউন্ড আউটপুট দিতে সক্ষম। মিউজিকের সনিক সিগন্যাচারের কোন রকম পরিবর্তন ছাড়াই এটি ব্যাস বুস্ট করে। এর ইন্সট্রোমেন্টাল সেপারেশন খুবই ভাল যাতে সাউন্ডস্টেজ ওয়াউড মনে হবে। যারা মোবাইলের সাউন্ড আউটপুটে সন্তুষ্ট নয়, অথবা আপনার মিউজিক এক্সপেরিয়েন্স কে ১ স্টেপ উপরে নিতে চান চোখ বন্ধ করে অ্যাম্পটি নিতে পারেন। কথা দিতে পারি আপনি রিগ্রেট করবেন না। আপনার মিউজিক চাহিদা খুব ভালভাবেই মেটাতে সক্ষম মাত্র ২০ গ্রাম ওজনের এই অ্যাম্পটি। সবশেষে আমি ধন্যবাদ জানাবো জিএমবিডি কে এত সুন্দর একটি ডিভাইস আনার জন্যে। আমাদের মত লো বাজেটের মিউজিক লাভারদের জন্যে জিএমবিডি এর চেষ্টা সত্যই প্রশংসার দাবিদার। আশা করি ভবিষ্যতেও জিএমবিডি তাদের এই চেষ্টা অব্যাহত রাখবে। আজকেই এই পর্যন্তই। সামনে আরও কিছু ইয়ারফোনের রিভিউ নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হব। ভাল থাকবেন। আল্লাহ্‌ হাফেজ।

রিভিও লিখেছেনঃ Mohammad Zahidur Rahman








Comments

Popular posts from this blog